1. savarbarta247@gmail.com : Savar Barta24 : Savar Barta24
  2. admin@savarbarta24.com : savarbarta :
লকডাউন ভাবনা ও একটি প্রার্থনা - সাভার বার্তা
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১১:৪৩ পূর্বাহ্ন
শীর্ষ বার্তা
তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা করেছে ইসি অনিবন্ধিত ১৭৮টি নিউজ পোর্টাল বন্ধ করেছে বিটিআরসি সাভারে কাউন্দিয়া ইউনিয়ন আ’লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত সাভার সদর ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি সোহেল ও সাধারন সম্পাদক রুবেল নির্বাচিত সাভার সদর ইউনিয়ন আ’লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত বনগাঁও ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি সাইফুল ও সম্পাদক আরিফ ধামরাই উপজেলায় ১৫টির ৯ ইউনিয়নেই নৌকা প্রতীকের প্রার্থী বদল বিরুলীয়া ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি হালিম ও সাধারন সম্পাদক মালেক নির্বাচিত সাভারে দীর্ঘ ১৮ বছর পর বিরুলীয়া ইউনিয়ন আ’লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত সাভারের হেমায়েতপুরে ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীর সহযোগী অস্ত্রসহ আটক

আজকের দিন-তারিখ

  • মঙ্গলবার (সকাল ১১:৪৩)
  • ২৬শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৯শে রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি
  • ১০ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল)

লকডাউন ভাবনা ও একটি প্রার্থনা

  • Update Time : বুধবার, ৩০ জুন, ২০২১

ড. জেবউননেছা, অধ্যাপিকা, জা.বি

দু’তিন দিন আগে রাজধানী ঢাকার একটি সুপারস্টোরে গিয়েছিলাম  নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস ক্রয় করতে। গিয়ে দেখি  সবজি, ডিম, মাছ ও মাংস নেই। নিরুপায় হয়ে গেলাম স্থানীয় বাজারে। সেখানেও গিয়ে দেখি বাজারে মাছ নেই। সবজি কিনতে গেলে দোকানি বলেন, আপা, কয়েকদিন পর থেকে সবজি কিন্তু তিনগুণ দামে কিনতে হবে। জানেন তো, লকডাউন আসছে। গতকাল ছেলেকে নিয়ে গেলাম স্থানীয় এলাকার সেলুনে। নাপিতের কাছে জানতে চাইলাম গত লকডাউনে কীভাবে কেটেছে দিন। সে জানালো, ‘কয়েক মাস বেতন পাইনি। শুনেছি সরকার তিন হাজার করে টাকা দিয়েছিল, তা-ও পাইনি’। ফিরতে ফিরতে এক আম বিক্রেতার কাছে জানতে চাইলাম, আগের লকডাউনে সে কি ঢাকায় ছিল, নাকি গ্রামে চলে গিয়েছিল। জানালো, গ্রামে গিয়েছিল, সেখানে গিয়ে মাটি কেটেছে। এবার যাবে কিনা জানতে চাইলে বললো, ‘গ্রামে কাজ নেই, ঢাকায় মুখ থুবড়ে পড়ে থাকবো। শুনেছি, সরকার গতবার টাকা দিয়েছিল কিন্তু কানাকড়িও পাইনি’। অথচ গতকাল কুরিয়ার অফিসে ভুলে ১ হাজার টাকা  রেখে এসেছিলাম, নিজ দায়িত্ব থেকে একজন কর্মচারী ফোন করে আমাকে বলেছে সে আমার টাকা কি বিকাশে পাঠাবে নাকি আমি যাবো আনতে?
আমি বলেছি, নিজে গিয়ে নিয়ে আসবো। আমি নিজে যেতে চেয়েছিলাম এজন্য যে তার সততায় মুগ্ধ হয়েছি। তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতে নিজেই যেতে চেয়েছি। জানতে চেয়েছিলাম তার শিক্ষাগত যোগ্যতা। উত্তরে বলেছিল, নবম শ্রেণি। আমি বিস্মিত হই নবম শ্রেণি পড়ুয়া ছেলের সততার উচ্চতা পরিলক্ষিত করে।
আচ্ছা তাহলে সরকারের প্রণোদনা দেওয়ার দায়িত্ব যাদের ওপর তারা কি একবারেই অশিক্ষিত এবং ‘গো মূর্খ’! নাকি জ্ঞানপাপী এবং লোভী, স্বার্থান্ধ? তবে সবাই এক নয়। ব্যতিক্রমও আছে।

যাই হোক, ‘লকডাউন’ প্রসঙ্গে ফিরে আসি। কেন সরকার নতুন করে এই পদ্ধতিতে ফিরে এলো। কারণ সাধারণ মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মানা এবং  মাস্ক পরতে উদাসীন। যেখানে একদিনের লকডাউনে হাজার কোটি টাকা ক্ষতি। তদুপরি এই সিদ্ধান্তে সরকার আসতে বাধ্য হয়েছে, জনগণকে রক্ষা করার জন্য। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেছিলেন, করোনার তৃতীয় ঢেউ আঘাত হানতে পারে। সরকার সীমান্ত বন্ধ করে দিয়ে দারুণ কাজ করেছে।

ক’দিন পূর্বে রাজধানীর একটি অভিজাত হাসপাতালে পরিবারের সদস্যের অসুস্থতার কারণে বেশ কয়েকদিন থাকতে হয়েছিল। প্রতিষ্ঠানটির সেবিকা, ক্লিনারদের সঙ্গে কথা বলে জানতে পেরেছিলাম, তারা টিকা নিয়েছে কিনা। তাদের উত্তর ছিল ‘না’। অথচ হাসপাতালটি রোগী ভর্তির পূর্বে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করার জন্য ৩,০০০ টাকা গ্রহণ করে। প্রশ্ন হচ্ছে তার প্রতিষ্ঠানের সেবিকা এবং অন্যরাই তো কোভিড আশঙ্কা থেকে মুক্ত নয়। অথচ সেই হাসপাতালের মালিক চাইলেই তার হাসপাতালের সবার জন্য টিকার ব্যবস্থা করতে পারতেন।

কয়দিন পূর্বে জাতীয় টেলিভিশনে ‘লকডাউন’ সম্পর্কিত একটি আলোচনায় বলেছিলাম, দেশের ধনী শ্রেণি যারা পুঁজিপতি, শিল্পপতি এবং যারা বিদেশ থেকে টিকা কিনে এনে সরকারের কাছে বিক্রি করেন, তাদের প্রতিষ্ঠানে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের এবং তাদের পরিবারকে যদি বিনামূল্যে টিকা প্রদান করে তাহলে তাদের প্রতিষ্ঠান যেমন থাকবে নিরাপদ তেমনি সরকারের ওপর অতিরিক্ত চাপ কমে আসবে।

আমি ব্যক্তিগতভাবে করোনার টিকা গ্রহণ করেছি সরকারি এক হাসপাতালে। ভালো লেগেছে সে হাসপাতালে টিকা প্রদানের ব্যবস্থাপনা দেখে। জনগণের মধ্যে টিকা গ্রহণের সচেতনতা তৈরির জন্য সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে আসতে হবে। কেননা, সরকারের একার পক্ষে এত জনবহুল দেশের জনগণের জন্য টিকা ক্রয় করতে হিমশিম খেয়ে যাবে। তাছাড়া সরকার এই করোনা পরিস্থিতিতে শুধু টিকা ক্রয় ছাড়াও দরিদ্রদের জন্য প্রণোদনা দিচ্ছে। হাসপাতালগুলোতে আইসিইউ শয্যা বৃদ্ধি করছে। কত অর্থই বা সঞ্চিত আছে রাষ্ট্রের কোষাগারে।

হ্যাঁ, অতটা হিমশিম খাওয়ার কথা ছিল না, যদি আমরা নাগরিক হিসেবে মূল্য সংযোজন কর এবং আয়কর ঠিকমতো পরিশোধ করতাম।

কয়দিন পূর্বে একটি নামিদামি ইলেকট্রনিক্স কোম্পানির শোরুমে  শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত যন্ত্র ক্রয় করতে গিয়েছিলাম। সেখানে গিয়ে দেখি তাদের অভ্যর্থনা টেবিলের সামনে পুরনো মূল্য সংযোজন করের সনদপত্র। জানতে চাইলে তাদের উত্তর, ‘আবেদন করেছি’। একই অবস্থা দেখতে পেয়েছিলাম আর একটি নামিদামি রেস্তোরাঁতেও। এ যদি হয় অবস্থা তখন তো সরকার হিমশিম খাবেই। এরমধ্যে কিছু মানুষের অসততা, অব্যবস্থাপনা, জবাবদিহির অভাব, অস্বচ্ছতা ক্যানসারের মতো আক্রান্ত করছে সব বিভাগে।

বেশ কয়েক দিন পূর্বে রাজধানীর একটি সরকারি হাসপাতালে আমার একজন আত্মীয়কে নিয়ে গিয়েছিলাম। সেখানে একটি সিট পেতে কর্মীদের টাকা দিতে হয়েছিল। রোগীটি মারা গেলে একটি অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করতে চাইলে সব অ্যাম্বুলেন্স ন্যায্য ভাড়ারে চেয়ে তিনগুণ বেশি হাঁকাচ্ছে। বাধ্য হয়ে সেই সিন্ডিকেটের একটি অ্যাম্বুলেন্স দিয়েই যেতে হয়েছে রোগীর গন্তব্যে।

তবে আমি ভীষণ আশাবাদী মানুষ। আমি মনে করি খাদ্যশস্যে পরিপূর্ণ কৃষি প্রধান এই দেশ যখন প্রযুক্তির বাতাসে নিজেকে বদল করে নিচ্ছে, একদিন এই দেশের প্রতিটি নাগরিকের একটি করে পিন নম্বর থাকবে। একটি শিশু জন্মগ্রহণ করলেই জন্মের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তার নিবন্ধন হবে। সেই নিবন্ধনকৃত নম্বর দিয়ে সে আমৃত্যু সুফল ভোগ করবে। তার নামটি কম্পিউটারের সফটওয়্যারে দিলেই তার শিক্ষাগত যোগ্যতা, তার আয়করের হিসাব, তার আয়ের হিসাব চলে আসবে। নির্দিষ্ট পরিমাণ আয়ের চেয়ে তার আয় কমে গেলে তার বাড়িতে পৌঁছে যাবে ত্রাণ। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকের সমস্ত পাঠ শ্রেণি শুরু হওয়ার পূর্বেই আপলোড হয়ে যাবে। হাসপাতালে প্রচুর শয্যা থাকবে, আইসিইউ থাকবে। চিকিৎসায় গবেষণার অর্থ ফেরত যাবে না।  হাসপাতাল ব্যবস্থাপনায় অ্যাম্বুলেন্স সেবা পরিচালিত হবে। চিকিৎসা সরঞ্জাম দিনের পর দিন বিমানবন্দরে পড়ে থাকবে না।  বিমানবন্দর থেকে বের হওয়ার পর সেখানে একটি বুথ থাকবে, সেই বুথের মাধ্যমে একটি রিসিট নিয়ে যাত্রী চলে যাবে গন্তব্যে। রাজধানীর  সব খাল বিল হবে মশামুক্ত। সব মাঠ হবে খেলাধুলার জন্য উপযুক্ত, মানুষ যেখানে সেখানে ময়লা ফেলবে না। বেকার যুবক থাকবে না। সব বিভাগ হবে দুর্নীতির কালো ছায়ামুক্ত।

আমার পরিচিত এক রোগীর হাসপাতালে আটদিনে রোগীর বিল এসেছে সাড়ে চৌদ্দ লাখ টাকা। রোগীর কিডনি দুটো প্রায় অকার্যকর। অথচ রোগীর বয়স মাত্র ৩৫। রোগীটি ডেঙ্গুতে আক্রান্ত। তিনি পুরান ঢাকার অধিবাসী। এই রোগীটি  ফিরবে কিনা জানি না। তবে যে মশাটি কামড় দিয়ে রোগীটিকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিলো সে মশা নির্মূলের জন্য কী ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে তা জানা নেই।

লকডাউনের খবর শুনে সামাজিক মাধ্যমে  লিখেছিলাম, কোভিড-১৯ মোকাবিলায় সরকারের সঙ্গে আমি নিয়মিত বেতনভোগী হিসেবে আমার বেতন থেকে আগামী তিন মাস ১০% বেতন দিতে আগ্রহী। লেখাটি লেখার পর অনেকে বলেছেন, সুন্দর প্রস্তাব। কিন্তু দুই একজন ব্যতীত আমি কাউকে লিখতে দেখিনি, সেও তার বেতনটি দরিদ্রকে দিতে চান। হ্যাঁ, তাদের হয়তো ভয়ও থাকতে পারে। এই তহবিল গঠন হলে, সেই অর্থ ঠিকমত প্রান্তিকে পৌঁছাবে তো? এই ক্ষেত্রে আমার মতামত, যদি এমন তহবিল গঠন হয়, তাহলে প্রতি এলাকার স্বেচ্ছাসেবক এবং শিক্ষক সমাজ এই তহবিল বিতরণে দায়িত্ব পালন করতে পারেন। তাহলে হয়তো একটি বিশ্বাসযোগ্যতা আসতে পারে। করোনাকালে এখন লক্ষ লক্ষ শিক্ষিত বেকার যুবক ঘরে বসে আছে, তাদের  কাজে লাগানো যেতে পারে। সরকার করোনার টিকার জন্য প্রাণান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে। সবার জন্য টিকা নিশ্চিত হলে প্রথমেই প্রয়োজন চিকিৎসক, সেবিকা, পুলিশদের টিকা প্রদান করা। এরপর ৬০  এবং তদূর্ধ্ব বয়সীদের জন্য টিকা নিশ্চিত করা। অতঃপর প্রাথমিক থেকে উচ্চশিক্ষা স্তর পর্যন্ত সবাইকে টিকা নিশ্চিত করা। কোভিড কতদিন থাকবে বোঝা যাচ্ছে না। তাই সবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করাই এখন মুখ্য বিষয়। কারণ, অনন্তকাল সবকিছু বন্ধ করে চলা যাবে না।

এক্ষেত্রে চাঁপাইনবাবগঞ্জের এমপি ড. সলিমউদ্দিনের মতো জনসেবকও খুব প্রয়োজন। যার প্রত্যক্ষ নির্দেশনায় কানসাটবাসী কোভিড সংক্রমণ থেকে কিছুটা হলেও রেহাই পেয়েছে। সুতরাং মহামারি রোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিকল্প কিছু নেই। এক্ষেত্রে সরকারের সঙ্গে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ করতে পারে। বড় বড় শিল্পকারখানার মালিকেরা তাদের কর্মকর্তা এবং কর্মচারীদের টিকার ব্যবস্থা করতে পারে তাদের স্বার্থে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো তাদের শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা এবং কর্মচারীর জন্য টিকার ব্যবস্থা করতে পারে। সব কিছুর সঙ্গে সমন্বয় করে চলতে হবে। মানুষ বাঁচাতে হবে। দেশ বাঁচাতে হবে। প্রজন্ম বাঁচাতে হবে।

মনে রাখতে হবে, প্রতিটি প্রাণই গুরুত্বপূর্ণ। যে মানুষটি প্রচুর অর্থবিত্তের মালিক তার প্রাণ যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমন গুরুত্বপূর্ণ যে মানুষটি থালাতে করে শসা বিক্রি করে। সব প্রাণের প্রতি  শ্রদ্ধা আছে বলেই সরকার লকডাউনের দিকে এগোচ্ছে। অথচ এই লকডাউনের ঘোষণার পরবর্তীকালে গ্রামমুখী মানুষের ভিড় থামানো যাচ্ছে না। আর এই বিপুল সংখ্যক লোক সমাগমের পেছনে একটিই কারণ, তারা কাজ হারাবে এই লকডাউনে। তাহলে কি এই রাজধানী তাদের নয়? যদি তাদের নাই হয়, তাহলে গ্রামগুলোকে নিয়ে ভাবার সময় এখনই। প্রতিটি গ্রামে, প্রতিটি জেলায় পর্যাপ্ত কর্মসংস্থান, মানসম্মত স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষাসেবা জরুরি। বারবার লকডাউনের ঘোষণায় গ্রামমুখী মানুষের স্রোত এটাই প্রমাণ করে, এ শহরটি তাদের নয়। কাজ নেই তো অন্ন নেই। বড্ড বেশি স্বার্থপর এই শহর। প্রয়োজনে রাখে, অপ্রয়োজনে দূরে ঠেলে দেয়।

করোনাভাইরাস যেমন ক্ষতি করে দিলো আমাদের তেমন শিখিয়েও গেলো নতুন করে ভাবার, সবকিছু পুনগর্ঠিত করার পরিকল্পনার কথা।

লেখাটি যখন শেষ পর্যায়ে তখন মধ্য রাত। বারান্দায় তাকিয়ে দেখি রাস্তার পাশের চায়ের দোকানটি খোলা, রিকশার টুং টাং শব্দ। এটাই তো আমাদের শহর। যেখানে আমরা সবাই সুখ-দুঃখ ভাগ করে থাকি। অথচ আমাদের অসচেতনতায় মহামারি করোনা রাজধানী ঢাকার দরজায় কড়া নাড়ছে। কড়া নাড়ছে বাংলাদেশের দরজায়। লকডাউন শুরু হলে হয়তো চায়ের দোকানটি বন্ধ থাকবে। কিন্তু তার জীবনটায় পেটের ক্ষুধা নিবারণ হবে কী করে? আসুন, সবাই মিলে একত্রিত হয়ে করোনাযুদ্ধে শামিল হই। হাত বাড়িয়ে দেই দরিদ্রদের জন্য। যে যেখানে আছি সৎভাবে দায়িত্ব পালন করি।

লেখাটি শেষ করবো জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর বিজয় দিবস উপলক্ষে ১৫ ডিসেম্বর, ১৯৭৪ সালে জাতির উদ্দেশে প্রদত্ত ভাষণের একটি কথা দিয়ে। তিনি বলেছিলেন, ‘সোনার বাংলা গড়তে সোনার মানুষ চাই’। হ্যাঁ, আমাদের একজন ‘সোনার মানুষ’ আছেন। তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্বজন পরিজন হারানোর শোককে শক্তিতে পরিণত করে হাড়ভাঙা খাটুনি খেটে দেশটিকে পরিচালনা করছেন। এই একজন ‘সোনার মানুষ’ দেশের সব খবর রাখেন। তাঁর হাতকে শক্তিশালী করতে প্রতি জেলার সংসদ সদস্য এবং স্থানীয় প্রতিনিধিদেরও হতে হবে ‘সোনার মানুষ’। তাই লকডাউন চলাকালীন এবং কোভিডমুক্ত বাংলাদেশে প্রতি ঘরে একজন করে সোনার মানুষের জন্ম হোক, এটাই প্রার্থনা।

লেখক: অধ্যাপিকা, লোকপ্রশাসন বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved @ savarbarta24.com | 2014-2021
Desing BY Mutasim Billa