সাভার পৌর আওয়ামী লীগ নেতা মজিদ হত্যার ঘটনায় সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মোক্তার হোসেন গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক: আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সাভার পৌর আওয়ামী লীগ নেতা মজিদ হত্যার ঘটনায় সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মোক্তার হোসেনকে গ্রেফতার ও মামলার প্রধান আসামীর স্ত্রীকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। অপর আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত।

রোববার ভোররাতে মামলার ৩ নং আসামী মোক্তার হোসেনকে গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। অপরদিকে সন্ধ্যার পর মামলার ১ নং আসামী মিকাইল মেম্বার পলাতাক থাকায় তার স্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছে। তবে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে গ্রেফতার করা হবে না বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মামলার এজাহারভুক্ত আসামীরা হলেন, সাভার পৌর এলাকার কোর্টবাড়ি মহল্লার মেম্বার মিকাইল মোল্লা (৬০), আনোয়ার হোসেনের ছেলে বাবু (২৬), মোক্তার হোসেন (৪০), মনির (৪৫), স্বপন (৩৮), মনির (২০), রিপন (২০), আনোয়ার (৬০) ও সুজাতসহ (৩৮) অজ্ঞাত নামা আরও ৮/৯ জন।

পুলিশ ও নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, শনিবার রাত সাড়ে ১০ টারদিকে পৌর আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মজিদ তার সহযোগী স্বপন শেখ (২৬)কে নিয়ে নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে বাসায় ফিরছিলেন। পথে কোর্টবাড়ি এলাকায় পৌছলে সন্ত্রাসীরা পেছন থেকে মজিদের মাথায় এবং স্বপন শেখের পায়ে গুলি করে পালিয়ে যায়। এসময় স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে সাভারে এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মজিদকে মৃত ঘোষণা করেন। গুলিবিদ্ধ আহত স্বপন শেখ বর্তমানে এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

সাভার পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম মানিক মোল্লা বলেন, কিছুদিন আগে এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী মাদক ব্যবসায়ী মিকাইল মেম্বারের সাথে আব্দুল মজিদের ঝগড়া হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে শনিবার রাতে মিকাইল মেম্বারের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী মজিদকে গুলি করে হত্যা করেছে।

নিহত মজিদদের পরিবার সূত্রে জানাযায়, পূর্ব শত্রুতার জেরে মিকাইল মেম্বার ও তার ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা তার ভাইকে গুলি করে হত্যা করেছে। কয়েকদিন পূর্বে মিকাইল মেম্বারের সাথে মজিদের বাক-বিতন্ডার ঘটনা ঘটে। তবে কি বিষয়ে শত্রুতা চলছিলো সে বিষয়ে জানাতে পারেনি।

সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এএফএম সায়েদ বলেন, দুর্বৃত্তরা পৌর আওয়ামী লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলার এজাহারভুক্ত ৩ নংআসামী মোক্তার হোসেনকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। বাকি আসামীদেরও শীঘ্রই আটক করা সম্ভব হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *