সাভারে নিলা হত্যাকান্ড: ৩ দিনেও গ্রেপ্তার হয়নি হত্যাকারী, তদন্তে সিআইডি

নিজস্ব প্রতিবেদক: সাভারে রিক্সা দিয়ে যাওয়ার পথে জুরপূর্বক নামিয়ে রেখে নিলা রায় (১৪) নামে এক স্কুল ছাত্রীকে ছুরিকাঘাত ও কুপিয়ে হত্যার তিন দিন পার হলেও হত্যাকারী মিজানকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত ওই যুবকসহ তার পরিবারের সদস্যরা পলাতক রয়েছে। এঘটনায় নিহত স্কুল ছাত্রীর বাবা নারায়ন রায় বাদী হয়ে সাভার মডেল থানায় একটি মামলা (নং-৩৮) দায়ের করেছেন। এদিকে ঘটনার তিন দিন পরেও পুলিশ মিজানকে গ্রেপ্তার করতে না পারায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা। এছাড়া হত্যাকান্ডের পর ঘটনাস্থলে উৎসুক জনতা ভিড় করায় আলামত নষ্টেরও আশঙ্কা করেন তারা।

তবে বিষয়টিকে অধিকতর গুরুত্ব দিয়ে পুলিশের পাশাপাশি হত্যাকান্ডের ঘটনায় ছায়া তদন্তে নেমেছে সিআইডি। মঙ্গলবার সকাল থেকেই সিআইডি পুলিশ ওই এলাকায় অবস্থান নিয়ে হত্যার স্থান ও এর পাশ থেকে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করেছে।
সরেজমিনে হত্যার স্থান ও আশপাশের লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, সাভার পৌর এলাকার কাজী মোকমাপাড়া এলাকাটিতে মাদকের জমজমাট বেচাঁকেনার পাশাপাশি বিভিন্ন খালি বাউন্ডারিতে নিয়মিক মাদক সেবন করে থাকে এলাকার উঠতি বয়সী কিশোর, যুবকসহ অনেকেই। যা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদেও তদন্তে অপরাধী চক্রের সদস্যদের নাম বেড়িয়ে আসবে।

সরেজমিনে হত্যার স্থান ও আশপাশের লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, সাভার পৌর এলাকার কাজী মোকমাপাড়া এলাকায় মাদকের জমজমাট বেচাঁকেনার পাশাপাশি বিভিন্ন খালি বাউন্ডারিতে নিয়মিক মাদক সেবন করে থাকে এলাকার উঠতি বয়সী কিশোরেরা। আর এসব মাদক ব্যবসা ও কিশোর গ্যাং সদস্যদেরকে নিয়ন্ত্রণ করে থাকে ওই এলাকার পৌর আওয়ামী লীগ নেতা শিরুর ছেলে শাকিল ও সাকিব।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার একাধিক বাসিন্দা অভিযোগ করেন আওয়ামী লীগ নেতা শিরুর ছেলে সাকিব এই এলাকার কিশোর গ্যাং সদস্যদের নিয়ন্ত্রন করে থাকে। তার সাথেই হত্যকারী মিজানুরের সখ্যতা রয়েছে এবং তারা উভয়ে মিলে ওই এলাকার কিশোর গ্যাং এবং বিভিন্ন মাদক স্পট পরিচালনা করে। প্রতিদিনই জমজমাট মাদকের আসর বসে এলাকাটিতে। সাভার গার্লস স্কুলের পেছনে পরিত্যাক্ত বাউন্ডারি ঘেরা মাঠগুলোতে সন্ধ্যার পরই কিশোর গ্যাং সদস্যদের পদচারনায় সরগরম হয়ে উঠে। তাদের উৎপাতে এলাকার মা-বোন কিংবা বয়স্ক কেউই রাস্তা দিয়ে হাটতে পারেনা। এলাকায় কোন ঝালমুড়িওয়ালা, মাছ ওয়ালা ও সব্জী ওয়ালা আসলে তাদেরকে মারধর করে চাঁদা আদায় করে কিশোর গ্যাং সদস্যরা। সম্প্রতি সাইফুল নামে এক মুদি দোকানদার সাকিব ও মিজানের অত্যাচারে ব্যবসা ছেড়ে এলাকা থেকে চলে গেছে।

মাদকের এসব স্পট নিয়ন্ত্রণ করছে সাগর, সুজব, পারভেজ, হানিফ, জয়, রাব্বি, সাকিব, শাকিল, যাবেরসহ আরও অনেকে। এসব স্পটে পাইকারি ও খুচরা মূল্যে মাদকদ্রব্য বিক্রি হয়।

নিলা হত্যাকান্ডের ঘটনাস্থলের পাশের আনোয়ার ভিলা নামক ভবনের গেটের সামনে গত ২০১৫ ইং সালের ০৪ জানুয়ারি সন্ধ্যায় রিয়াজ মোর্শেদ বাবু নামে এক যুবককে গুলি করে ও কুপিয়ে হত্যা করার ঘটনা ঘটেছিল। সেই হত্যাকান্ডের প্রধান আসামীও আওয়ামী লীগ নেতা সিরুর ছেলে শাকিল। শাকিল ওই মামলায় এখন জামিনে আছে। নিহত রিয়াজ শান্তা মরিয়ম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিল। রিয়াজ তার স্ত্রীসহ স্থানীয় একটি বাড়ীতে ভাড়া থাকতো। মেয়ে সংক্রান্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে রিয়াজ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে ছিলো বলে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে।

সাভার মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (ইন্টেলিজেন্স) নির্মল কুমার দাস বলেন, নিহতের মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের লোকজনের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এছাড়া ঘটনাস্থলের বিভিন্ন আলামত দেখে ওই ছাত্রীকে ধর্ষন করা হতে পারে মনে হওয়ায় ডিএনএ টেস্ট করতে বলা হয়েছে। ডিএনএ রিপোর্ট হাতে পেলেই জানা যাবে তাকে ধর্ষন করা হয়েছিলো কিনা। হত্যাকান্ডের ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। এ দিকে আজ মঙ্গলবার থেকে সিআইডির একটি দল তদন্তে নেমেছে বলে জানাগেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *